প্রচার অভিযান

এই মুহূর্তে সারাবাংলা

জয়ন্ত সাহা, খবরইন্ডিয়াঅনলাইন, আসানসোলঃ   মহাত্মা গান্ধীর ১৫০ তম জন্ম জয়ন্তী উপলক্ষ্যে সারা দেশজুড়ে কেন্দ্রীয় সরকার স্বচ্ছতা হি সেবা প্রকল্পের প্রচার অভিযান চালাচ্ছে। তারও আগে স্বচ্ছতার প্রশ্নে কেন্দ্র সরকার ও রাজ্য সরকার উভয়েই স্বচ্ছ ভারত মিশন ও নির্মল বাংলা প্রকল্প চালু করেছে ৷ স্বাধীনতার ৭১ বছর অতিক্রান্ত হওয়ার পর যে প্রকল্প নিয়ে জন সচেতনতা বাড়াতে কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার উঠে পড়ে লেগেছে ৷ সেই প্রকল্পের বীজ আসানসোলের বুকে বপন হয়েছিল ১৯২২-১৯২৩ সালের মধ্যে ৷ আসানসোলের ঊষাগ্রাম বয়েজ হাইস্কুলে রেভারেণ্ড ফ্রেড. জি. উইলিয়ামের হাত ধরে গড়ে উঠেছিল রুরাল হোম স্যানিটেশন প্রকল্প ৷ ইতিহাসের পাতায় মাটির তৈরী ২৪ টি কটেজ নিয়ে গড়ে ওঠা খ্রিষ্টান রিলিজিয়াস মাইনরটি স্কুলের সেই সময় ছেলে ও মেয়েদের পঠন- পাঠন বিভাগের নাম ছিল যথাক্রমে আশা বাড়ি ও সন্ধ্যা বাড়ি ৷ কাশীপুর রাজ পরিবারের দেওয়া জমির উপর ১৯০৪ সালের ৪ঠা ফেব্রুয়ারী এই স্কুল গড়ে উঠেছিল উইলিয়াম প্রাইস বায়ার্সের হাত ধরে ৷

 

পরে এই স্কুলের দায়িত্ব নেন রেভারেণ্ড এফ জি উইলিয়াম ৷ তাঁর সময়কালকেই এই স্কুলের স্বর্ণযুগ বলে অভিহিত করেছেন বর্তমান স্কুল সেক্রেটারি রেভারেণ্ড মোজেস প্রসাদ ৷ তিনি জানিয়েছেন , রেভারেণ্ড এফ জি উইলিয়ামের সাথে সে সময় কবিগুরু রবীন্দ্রনাথের বেশ ভালো যোগাযোগ ছিল ৷ ১৯২২-২৩ সালে আসানসোলের বুকে নারী শিক্ষার প্রসার বা রুরাল হোম স্যানিটেশন প্রকল্পের পরিচয় পেয়ে রবীন্দ্রনাথ উদীয়মান সূর্যের সাথে মিল রেখে এই অঞ্চলের নাম দেন ঊষাগ্রাম ৷ সেই থেকেই আশা বাড়ি ও সন্ধ্যা বাড়ি স্কুলের নাম হয় ঊষাগ্রাম বয়েজ ও গার্লস স্কুল ৷ রবীন্দ্রনাথের কাছ থেকেই এই রুরাল হোম স্যানিটেশন প্রকল্পের খোঁজ পেয়েছিলেন মহাত্মা গান্ধী ৷

 

 

সাথে সাথেই সহযোগীতা চেয়ে চিঠি লিখেছিলেন রেভারেণ্ড এফ. জি . উইলিয়ামকে ৷ রেভারেণ্ড এফ জি উইলিয়াম ও তার সহকর্মী আইরিনের পাঠানো নীল নক্সার উপর ভিত্তি করে ১৯৩৫ সালে গান্ধীজির ওয়ার্ধার সেবাগ্রামে গড়ে উঠেছিল স্যানিটেশন প্রকল্প ৷ শুধু যে গান্ধীজির আশ্রম তাই নয় ; পরবর্তী ক্ষেত্রে অবিভক্ত বাংলা , বিহার , উত্তর প্রদেশ , দিল্লি , গুজরাট এমনকি সুদূর আমেরিকার মেক্সিকোতে ঊষাগ্রাম রুরাল হোম স্যানিটেশন প্রকল্পকে মডেল করা হয়েছিল ৷ ভাবতে অবাক লাগে , এই ভারতবর্ষেই স্বাধীনতার ৭২ বছরেও মানুষের হাতে ব্যবহৃত মোবাইলের চাইতে শৌচালয়ের সংখ্যা অনেক কম ৷ সেদিক থেকে বলা যেতেই পারে বর্তমানে সমগ্র ভারতের স্বচ্ছ ভারত মিশন প্রকল্পকে পথ দেখাচ্ছে আসানসোলের ঊষাগ্রাম বয়েজ হাইস্কুল ৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *