বিপর্যয় মোকাবিলা ও প্রাণহানী রোধে বিশেষ প্রশিক্ষিত দল গড়ে তোলা হচ্ছে পশ্চিম বর্ধমানে

এই মুহূর্তে সারাবাংলা

জয়ন্ত সাহা, খবরইন্ডিয়াঅনলাইনঃ   রাজ্যে প্রথম বিপর্যয় মোকাবিলা ও প্রাণহানী রোধে বিশেষ প্রশিক্ষিত দল গড়ে তোলা হচ্ছে পশ্চিম বর্ধমানে ৷ এই বিশেষ দল গড়ে তুলতে ইতিমধ্যে জেলার বিভিন্ন ব্লক ও পুরসভা এলাকাগুলি থেকে ৫০ জন যুবককে প্রাথমিক পর্যায়ে নির্বাচিত করা হয় ৷ পরবর্তী ক্ষেত্রে তাদের মধ্যে থেকে শারীরিক সক্ষমতার উপর নির্ভর করে চূড়ান্ত তালিকায় ৩৫ জনের অন্তর্ভুক্তি হয় ৷ বর্তমানে এই ৩৫ জনকে নিয়ে বিশেষ প্রশিক্ষণের কাজ শুরু হয়েছে গত শনিবার থেকে ৷ জেলার সাধারণ অতিরিক্ত জেলা শাসক অরিন্দম রায় জানান , “কিছুদিন পূর্বে নাগরিক অসামরিক সুরক্ষা দফতর (সিভিল ডিফেন্স) এর সচিব একটি ভিডিও কনফারেন্স এর মাধ্যমে জেলায় বিভিন্ন দুর্যোগে মৃত্যুর খতিয়ান তুলে ধরতে বলেন ৷ তারই প্রেক্ষিতে জেলা থেকে বিপর্যয় মোকাবিলা ও প্রাণহানী রোধে বিশেষ দল গড়ে তোলার প্রস্তাব পাঠানো হয়।

 

 

 

 

 

এরপরেই রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে বিষয়টিতে বিশেষ অনুমোদন পাওয়া যায় ৷ ” মূলত খনি শিল্পাঞ্চল ধ্বস প্রবণ এলাকা ৷ তাছাড়াও অজয় ও দামোদর নদ কেন্দ্রীক এই জেলায় বিভিন্ন উৎসব ও সামাজিক সংস্কার পালিত হয় ৷ যেখানে বিশেষ বিশেষ ক্ষেত্রে অতীতে বেশ কিছু প্রাণহানীর ঘটনা ঘটেছে ৷ অতীতের পরিসংখ্যান থেকে সতর্ক হয়েই রাজ্য সরকারের তত্ত্বাবধানে এই বিশেষ প্রশিক্ষিত দল গড়ে তোলা হচ্ছে ৷ যার পোশাকি নাম ডুবুরি তৈরী করা হলেও যাদের মূল লক্ষ্য থাকবে বিপর্যয় ও দুর্যোগ থেকে উদ্ধার করে প্রাণহানী রোধ করা ৷ সেক্ষেত্রে দুর্যোগ আক্রান্ত মানুষকে শুধুমাত্র উদ্ধার করাই নয় , চিকিৎসক আসার পূর্বে জীবন বাঁচানোর ক্ষেত্রে প্রাথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থা করণের মাধ্যম ও পদ্ধতিও আয়ত্ব করতে হবে বিপর্যয় মোকাবিলার দলটিকে ৷ বর্তমানে ৩৫ জন প্রশিক্ষণ নিলেও আগামীদিনে জেলার জন্যে ৮০ থেকে ১০০ জন সদস্যে দল গড়ে তোলা হবে ৷ প্রশিক্ষণ শিবিরে কলকাতা থেকে বিশেষ প্রশিক্ষক দল আনা হয়েছে ৷ যারা ওই সদস্যদের খনিগর্ভ ও জলাধারগুলির ৩০ – ৩৫ ফুট গভীরে লাইফ জ্যাকেট , অক্সিজেন মাস্ক ও সিলিণ্ডার নিয়ে জীবন বাঁচানোর প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন ৷ প্রশিক্ষণ শিবিরের উল্লেখযোগ্য জায়গাগুলির মধ্যে রয়েছে মিঠানী কোলিয়ারী , চন্দ্রচূড় মন্দির ও মাইথন জলাধার ৷ ভবিষ্যতে প্রতি জেলার জন্যেই বিপর্যয় মোকাবিলায় বিশেষ প্রশিক্ষিত দল গড়ে তোলা হবে ৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *