কৃষকদের আয় বাড়াতে বিজ্ঞানসম্মত ও সুসংহত চাষাবাদ পদ্ধতি গ্রহণে জোর দিলেন কৃষি মন্ত্রী

এই মুহূর্তে জাতীয়

খবরইন্ডিয়াঅনলাইন, নয়াদিল্লিঃ   কৃষকদের উপার্জন ২০২২ সাল নাগাদ দ্বিগুণ করার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদীর স্বপ্ন পূরণে বিজ্ঞানসম্মত উপায়ে রচিত সুসংহত কৃষি পদ্ধতির প্রসারে জোর দেওয়া হচ্ছে। কৃষকদের জীবন-জীবিকার নিরাপত্তা ও আয় বাড়ানোর জন্য এই কৃষি পদ্ধতি নিয়ে এক আলোচনা বৈঠকে একথা জানান কেন্দ্রীয় কৃষি ও কৃষক কল্যাণ মন্ত্রী শ্রী রাধামোহন সিং। বৈঠকে মন্ত্রকের সংসদীয় পরামর্শদাতা কমিটির সদস্যরা ছাড়াও সরকারি আধিকারিক ও ভারতীয় কৃষি গবেষণা পর্ষদের বিজ্ঞানীরা উপস্থিত ছিলেন।

শ্রী সিং আরও বলেন, এই কৃষি পদ্ধতির মাধ্যমে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির পাশাপাশি কৃষকদের লাভের পরিমান বাড়বে এবং উৎপাদন খরচ কমবে। উচ্চ ফলনশীল ফসলের জন্য রাসায়নিক সারের ব্যবহার বেশি। এক সময়, খাদ্য আমদানির ওপর নির্ভরশীলতা কমাতে এবং দেশে খাদ্যের চাহিদা পূরণে রাসায়নিক সারের ব্যাপক ব্যবহার করা হয়েছিল। অবশ্য, পরবর্তী সময়ে কম উর্বর সার ব্যবহারের ফলে উৎপাদনশীলতা হ্রাস পাওয়ার পাশাপাশি কৃষকদের আয়ও কমে যায়। সংসদে পেশ করা ২০১৭-১৮’র অর্থনৈতিক সমীক্ষার কথা উল্লেখ করে মন্ত্রী জানান, বিগত এক দশকে শস্য উৎপাদন থেকে কৃষকদের আয় বেড়েছে কেবল ১ শতাংশ, যেখানে গবাদি পশুপালন থেকে আয় বেড়েছে ৭ শতাংশ।

শ্রী সিং আরও বলেন, দেশে খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার ক্ষেত্রে দুই হেক্টর পর্যন্ত কৃষি জমিগুলি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে পারে। এ ধরণের কৃষি জমিতে ব্যাপক উৎপাদনশীল শস্য, ফুলচাষ, এমনকি ডেয়ারি, পোল্ট্রি, শূকর খামার প্রভৃতি গড়ে তোলা যেতে পারে। এরফলে, প্রান্তিক কৃষক ও ছোট পরিবারগুলির জীবনযাত্রার মান পাল্টে যাওয়া সম্ভব।

বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে ভারতীয় কৃষি গবেষণা পর্ষদের অংশীদারিত্ব গড়ে ওঠার ব্যাপারে সন্তোষ প্রকাশ করে শ্রী সিং বলেন, এই পর্ষদ কৃষকদের আয় ও ফসলের উৎপাদনশীলতা বাড়াতে ২৩টি রাজ্য ও একটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের পক্ষে উপযুক্ত ৪৫টি সুসংহত চাষাবাদ পদ্ধতি উদ্ভাবন করেছে। বৈঠকে উপস্থিত সংসদীয় কমিটির সদস্যদের বিজ্ঞানসম্মত ও অঞ্চল-ভিত্তিক চাষাবাদ পদ্ধতি নিজ নিজ এলাকায় প্রসারের জন্য কৃষিমন্ত্রী আহ্বান জানান। ( তথ্যঃ পিআইবি )।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *