৬টি বিষয় আকৃষ্ট হয় মেয়েরা

লাইফস্টাইল

খবরইন্ডিয়াঅনলাইন, ওয়েবডেস্কঃ     ছেলেদের কিছু বিষয় মেয়েদের খুব আকৃষ্ট করে। এক এক জনের এক এক রকম পছন্দ থাকলেও সম্প্রতি লাইস্টাইল ইভেন্ট গ্রুপ ফেমিয়ানা-র দ্বারা পরিচালিত একটি সমীক্ষার ফলাফলে উঠে এসেছে কিছু অদ্ভুত তথ্য।

পুরুষদের প্রতি মেয়েদের আকর্ষণের কয়েকটি গোপন কেন্দ্রবিন্দুকে আবিষ্কার করা, অর্থাৎ এমন কয়েকটি বিষয়—পুরুষদের ব্যক্তিত্বের যে দিকগুলি অপছন্দ করার ভান করেন মেয়েরা, কিন্তু মনে মনে আসলে সেগুলি পছন্দই করেন। ৬ হাজার ৭২৯ জন নারীকে প্রশ্ন করার পর সমীক্ষার ফলাফল স্বরূপ সংস্থাটি প্রকাশ করেছে।

 ‘‌ও তো কোন বিষয়ে আমার পরামর্শই চায় না’: 
স্বামী বা প্রেমিক সম্পর্কে নারীদের চেনা অভিযোগ এটি। কিন্তু আদৌ অন্য কারোর পরামর্শ ছাড়াই সিদ্ধান্ত নেওয়ার উপযুক্ত মানসিক দৃঢ়তা একজন পুরুষের মধ্যে মেয়েরা পছন্দই করেন।

আমি যখন কথা বলব, তুমি চুপ করে থাকবেঃ
প্রেমিক বা স্বামীর সঙ্গে ঝগড়ার সময়ে মেয়েরা অনেকেই রেগে গিয়ে এই কথা বলেন। কিন্তু তার অর্থ এই নয় যে, তিনি সত্যিই চাইছেন তার সঙ্গীটি মুখ বুজে থাকুক। বরং তর্ক এবং যুক্তির বিপক্ষে প্রতিযুক্তিই যে কোন সমস্যা সমাধানের সবচেয়ে কার্যকর উপায় তা জানেন যে কোন বুদ্ধিমতী।

 ওর তো রাগই নেইঃ 
তর্ক করা ভাল, কিন্তু তাই বলে রক্তচক্ষু হয়ে চেঁচিয়ে বাড়ি মাথায় করা মোটেই কাজের কথা নয়। অনেক পুরুষ ভাবেন, তর্জন-গর্জনেই বুঝি পৌরুষের প্রকাশ, ওটাই বুঝি পছন্দ করেন মেয়েরা। একেবারে ভুল। বরং ঝগড়ার মুহূর্তেও সঙ্গিনীর কুবাক্য শুনেও মাথা ঠান্ডা রাখতে পারেন যিনি, তিনিই আকর্ষণীয় পুরুষ।

 আবার বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দিতে বেরিয়ে গেছেঃ 
স্বামী বা প্রেমিক নিজের বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দিচ্ছে বা ঘুরছে—এমনটা দেখলে/জানতে পারলে, মুখে মেয়েরা যতই অসন্তোষ প্রকাশ করুন না কেন, মনে মনে খুশিই হন। আসলে ছেলেরা একটু সামাজিক হোক, অন্য বন্ধুদের  সঙ্গে আড্ডা মারুক, সময় কাটাক—এটা মেয়েরা ভালই বাসেন।

 সারাক্ষণ স্পোর্টস চ্যানেল খুলে বসে থাকো কেনঃ 
দাম্পত্য জীবনে স্বামীর প্রতি স্ত্রীর চেনা অভিযোগ। আদৌ কিন্তু মেয়েরা খেলাধুলো, দৌড়ঝাঁপ ব্যাপারটাকে যথেষ্ট পুরুষালি বলে মনে করেন। সেই কারণেই মেয়েদের মধ্যে নামজাদা খেলোয়াড়দের এত জনপ্রিয়তা। নিজের কর্তাটি খেলতে না পারুক, অন্তত খেলা দেখতে ভালবাসে।

 ও তো নিজের মনের কথা বুঝতেই দেয় নাঃ 

কথাটা অভিযোগের সুরে বলা হলেও, নিজের মনের ভাব নিজের মধ্যেই সীমাবদ্ধ রাখতে পারাটা একজন পুরুষের মানসিক দৃঢ়তার পরিচায়ক বলেই মনে করেন মেয়েরা। তার অর্থ এই নয় যে, নিজের ভাল লাগা, খারাপ লাগা কোন কিছুই নিজের সঙ্গিনীর সঙ্গে শেয়ার না করলে তারা খুশি হবেন।( ছবিঃ সংগৃহীত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *