মধ্যমগ্রামের ‘জয় দত্ত’ নাচকে সঙ্গী করেই দেখছেন তার ভবিষ্যৎ

এই মুহূর্তে বিনোদন


৩০শে মে, চুঁচুড়া, মোহনা বিশ্বাস : “নৃত্যের তালে তালে নটরাজ নৃত্যের তালে তালে”, কবিগুরু তাঁর গানের মধ্যে দিয়ে নাচের তালকে গানের ছন্দের সাথে মিলিয়ে ঐক্য স্থাপন করেছিলেন। মন ভালো রাখার জন্য গানের মতোই নাচও একটি অন্যতম মাধ্যম। আর এই নাচকেই সঙ্গী করে স্বপ্ন দেখছেন মধ্যমগ্রামের এক নৃত্যশিল্পী জয় দত্ত। ১৪ বছর বয়স থেকেই তিনি নাচের জগতে বিরাজমান। মূলত মাইকেল জ্যাকসন এবং প্রভু দেবা-র নাচই তাকে অনুপ্রাণিত করেছিল। উচ্চশিক্ষার জন্য মুম্বাই যান এবং সেখানেই তিনি বিখ্যাত নৃত্যশিল্পী গনেশ আচারীয়ার কাছে নাচের প্রশিক্ষণ নিতে শুরু করেন। দেব অভিনীত সিনেমা ‘চ্যালেঞ্জ’ থেকে শুরু করে ‘খোকা ৪২০’, ‘লাভেরিয়া’, ‘খিলাড়ি’ সহ আরও বিভিন্ন ফিল্মে ব্যাকআপ ড্যান্সার হিসাবেই তিনি প্রথম কাজ শুরু করেন। তারপর তিনি ‘আষাঢ়ে গপ্প’ নামক সিনেমাটিতে কোরিওগ্রাফির কাজও করেন। এছাড়াও তিনি সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, মনোজ মিত্র অভিনীত নতুন বাংলা ছবি ‘জল কুন্তল’-এ অভিনয়ও করেছেন। তিনি একজন সফল নৃত্যশিল্পী তো বটেই তার সাথে একজন সফল অভিনেতা হওয়ার স্বপ্নও তার চোখে বর্তমান। ওয়েস্টার্ন ড্যান্সে পশ্চিমী নৃত্য এবং ভারতীয় নৃত্যের সম্মেলনে নাচের জগতে এক নতুনত্ব নৃত্য পরিবেশন করার চেষ্টা তিনি সবসময়ই করে থাকেন। তার কথায় বহু ছেলে মেয়েই এই নাচের প্রতি আগ্রহী। তিনি মনে করেন নাচ একটি সাধনা, ভালোবেসে নাচ করলে নাচের মধ্যে দিয়ে সাফল্য আসবেই। মধ্যমগ্রামে জয় দত্ত-র “দ্যা গুরুকুল” নামে একটি নাচের স্কুলও আছে। এছাড়াও ‘মাইল স্টোনার’ নামে তার নাচের স্কুলেরই ২৫ জন ছাত্রছাত্রীকে নিয়ে তিনি একটি ড্যান্স গ্রুপও তৈরি করেন। নাচকেই তিনি পেশা হিসাবে বেছে নিয়েছেন। একাধারে তিনি অভিনয় জগতেও পা রেখেছেন। এই শিল্পী তার শিল্পের মাধ্যমে বাঙালীর মনকে জয় করেছেন এবং আশা করা যায় আগামী দিনে নাচের জগতে তার এই প্রতিভা সারা ভারতে আরও ছড়িয়ে পড়বে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *